গ্যা;স্ট্রিকের ব্যথা কমাতে ঝ;টপট খাবেন যে খাবারগুলো

সাধারণত অতিরি’ক্ত অ্যাসিড থেকে পে’টে গ্যাস্ট্রিকের ব্য’থা হয়। স’ঙ্গে থাকে পে’ট ফোলাভাব বা ফাঁপা ও হ’জম জনিত স’মস্যা। এই স’মস্যা দূ’র ক’রতে সঠিক খাদ্যাভ্যাস অনুসরণ করা জ’রুরি।

পুষ্টি-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্র’কাশিত প্র’তিবেদন অবলম্বনে গ্যাস্ট্রিকের ব্য’থা দূ’র ক’রতে সহায়তা করে এমন কয়েকটি খাবারের নাম স’ম্পর্কে জা’নানো হল।

দই: দই উপকারী ব্যাক্টেরিয়ার ভালো উৎস এবং এটা হ’জমে সহায়তা করে। পানির স’ঙ্গে দই মিশিয়ে পানীয় তৈরি ক’রতে পারেন। এতে ভাজা জিরা ও বিট লবণ মিশিয়ে স্বাদ বাড়াতে পারেন। চাইলে এত আপেলও যোগ করে নিতে পারেন।

ভেষজ চা: ভেষজ চা নানান ঔষধি গুণ সম্পন্ন গাছ পাতা দিয়ে তৈরি। এগুলো শ’ক্তিশালো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও প্রদাহরো’ধী উপাদান সমৃদ্ধ। ভেষজ চা হ’জমে সাহায্য করে ও গ্যাস্ট্রিকের ব্য’থা কমায়। ভেষজ উপাদানের মধ্য আদা, পুদিনা, ক্যামোমাইল ও লেবু উল্লেখ্যযোগ্য।

মৌরি বীজ: গ্যাস্ট্রিকের ব্য’থা কমাতে উপকারী। ভারতে সাধারণত খাবারের পরে হ’জমক্রিয়া বাড়াতে মৌরি খাওয়া হয়। এতে আছে গু’রুত্বপূর্ণ উদ্ভিদ যৌগ যা গ্যাস্ট্রিকের রস নিঃসরণে সহায়তা করে, খাবার হ’জমে সহায়তা করে, বদহ’জম ও কোষ্ঠকাঠিন্যের লক্ষণ দূ’র ক’রতে সহায়তা করে।

অ্যাপল সাইডার ভিনিগার: অন্ত্রে অ্যাসিডিক মাইক্রোন পরিবেশ তৈরি করে এবং হ’জমে সহায়ক এনজাইমকেও সক্রিয় করে। এটা এইভাবে হ’জমে সহায়তা করে, ব্য’থা কমায়, গ্যাস্ট্রিকের নানান স’মস্যা যেমন- পে’ট ব্য’থা ও পে’ট ফোলাভাব কমায়।

এক গ্লাস পানিতে দুই চা-চামচ ভিনিগার মিশিয়ে পান করুন এবং গ্যাস্ট্রিকের ব্য’থা কমাতে এটা নিয়মিত গ্রহণ করা যেতে পারে।

লবঙ্গ: পে’ট ফোলাভাব, গ্যাস্ট্রিকের ব্য’থা, পে’ট ফাঁপা, কোষ্ঠকাঠিন্য ইত্যাদির জন্য লবঙ্গ ব্যবহার করা হয় প্রাচীনকাল থেকেই। লবঙ্গ চিবিয়ে খাওয়া বা খাবারের পরে এলাচের স’ঙ্গে লবঙ্গের গুঁড়া মিশিয়ে এক কাপ চা পান অ্যাসিডিটি কমায় ও অতিরি’ক্ত গ্যাস দূ’র ক’রতে সহায়তা করে।

উচ্চ আঁশ সমৃদ্ধ খাবার: উচ্চ আঁশ সমৃদ্ধ খাবার যেমন- বাদাম, বীজ, সবজি, বেরি ও সবুজ শাক সবজি হ’জম ক্রিয়া উন্নত করে ও গ্যাসট্রিকের ব্য’থা কমাতে সহায়তা করে। গ্যাস্ট্রিকের স্বা’স্থ্য ভালো রাখতে ব্রকলি বেশ ভালো। এটা আঁশ সমৃদ্ধ হওয়ার পাশাপাশি সালফোরাফেন যৌগের উৎস যা, পে’টের স’মস্যা সৃষ্টিকারী ‘হেলিকোব্যাক্টর পাইলোরি ব্যাক্টেরিয়া’ ধ্বং’স করে।

সবজির পানীয়: উচ্চ শর্করা ও অ্যাসিড সমৃদ্ধ এবং আঁশ না থাকায় গ্যাস্ট্রিকের ব্য’থা কমাতে ফলের রস খাওয়া নি’ষেধ করা হলেও সবজির রস এক্ষেত্রে খুব উপকারী। যেমন- আলুর রস, আন্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ হওয়ায় তা পে’টের ব্য’থা কমায়। কুমড়ার রস গ্যাস্ট্রিক অ্যাসিডিটি কমায়, পে’টের স’মস্যা দ্রুত সমাধান করে।